শুরু হোক আজ থেকেই…………..

সময় বদলেছে,কেবল বদলায়নি নারীর প্রতি শোষন, বদলায়নি তার প্রতি সহিংসতা প্রকাশ, অথচ বাংলাদেশের মোট জনসংখ্যার অর্ধেকই এই নারী।শিশুকাল থেকে বৃদ্ধবয়স পর্যন্ত শোষনের মধ্যেই তার এই বিরামহীন যাত্রা। ব্যক্তিগত, পারিবারিক, সামাজিক এবং প্রাতিষ্ঠানিক সকল পর্যায়ে রয়েছে নারীর প্রতি বৈষম্য।পিতৃতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থায় একজন নারী এখন্ও একজন পুরোপুরি মানুষ হয়ে উঠার অধিকার পায়নি।এখন্ও সে শুধুই একজন নারী, যে তার পিতা ্ও তার স্বামীর সম্পত্তির ন্যায্য ভাগ থেকেও বঞ্চিত। নারীর প্রতি পুরুষের নেতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি , কুসংষ্কার, প্রথাগত বিশ্বাস, সংস্কৃতি এবং গোড়ামীর কারনে আমাদের সমাজে নারী নির্যাতনের চিত্রট্ওি ভয়াবহ। পত্রিকার পাতা উল্টালে প্রতিদিন চোখে পড়ে অসংখ্য নির্যাতনের ঘটনা কিন্তু এরচেয়্ওে অনেক বেশী ঘটনা রয়ে যায় আমাদের অন্তরালে। প্রায় প্রতিটি ঘরে প্রায় প্রতিদিন খুব নিরবে ঘটে যায় এসব নির্যাতনের ঘটনা। নারীর প্রতি সহিংসতার রুপটি ক্রমশ বদলাচ্ছে।একসময় এই নির্যাতন ঘরের চার দেয়ালের মধ্যে আবদ্ধ ছিল কিন্তু সেই নির্যাতন এখন ঘর ছেড়ে বের হয়ে ্এসেছে।মেয়েরা নিরাপদ নেই কোথ্ওা। যে বয়সে তার স্কুলে যাবার কথা, স্বপ্ন বুনার কথা ভবিষ্যতের ,সেই সময় ইভটিজিং নামক যৌন নির্যাতনের ঘটনা থামিয়ে দেয় অনেক মেয়ের জীবনের চলা, থামিয়ে দেয় অনেকগুলো জীবনের বেঁচে থাকার স্বপ্ন।যৌন হয়রানির প্রথম ধাপ হলো ইভটিজিং, মূলত নারীর প্রতি সম্মানের অভাব ইভটিজিংয়ে একটি বড় কারণ বিভিন্ন গনমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী ২০০৬ সাল থেকে ২০১০ সালের মে মাস পর্যন্ত ইভটিজিং এর শিকার হয়ে আতœহত্যার পথ বেছে নিয়েছে ৪০ জন নারী।এছাড়া প্রতিদিন অনেক নারী ইভটিজিংয়ে শিকার হচ্ছে ,যা অনেকটায় অপ্রকাশিত।সকল ধরনের নির্যাতন থেকে নারীর মুক্তি কোন পথে , আর অমাদের ভ’মিকাটাই বা কোথায়? শুধু নিরব দর্শক হয়ে দেখে য্ওায়া, নাকি প্রতিবাদের মিছিলে সামিল হ্ওয়া, নিজেকেই প্রশ্ন করি একবার।

কার্ইো ভ’লে গেলে চলবেনা একটি দেশের সমৃদ্ধির জন্য পুরুষের পাশাপাশি নারীন অবদান কোন অংশে কম নয়। নারীর প্রতি সহিংসতা তার উন্নয়নের পথে বড় বাধা, তাই এর প্রতিবাদ করা প্রয়োজন, নিরবতা কোন প্রতিবাদ নয় বরং তা প্রশ্রয়। তাই আর নিরব থাকা নয় নারীর পতি সকল ধরনের নির্যাতন বন্ধ করতে আসুন আমরা সবাই জোর প্রতিবাদ করি এবং এর বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলি।

আমাদের সম্মিলিত প্রতিবাদ এবং প্রতিরোধে এই বাংলাদেশ একদিন নারীর প্রতি সহিংসতামুক্ত দেশ হিসাবে সারা বিশ্বে পরিচিত হবে , এই হোক আমাদের অঙ্গিকার।

প্রতিবেদক
ফারজানা আক্তার
সিঃ অফিসার (অর্থও হিসাব বিভাগ)
চৌধুরীবাড়ী-২০